ব্লগ একাত্তর-

দেখুন বাংলা চলচিত্র থেকে হারিয়ে যাওয়া জনপ্রিয় নায়িকারা কে কেমন আছেন।

বাংলা সিনেমা জগতে এসেছেন কত সম্ভাবনাময়ী নায়িকার। কিন্তু তাদের মধ্যে কে এখন কেমন আছেন এবং কি করছেন তা আজ দেওয়া হলো। হয়তো এ সময়ে এসেও তারা নায়িকার চরিত্র করতে পারতেন। অথবা তাঁরা অভিনয়ে নিয়মিত থাকলে সিনেমা জগত থাকতো আরও উজ্জ্বল।

১।তামান্না:

পরিচালক শহীদুল ইসলাম খোকনের পরিচালিত “ভণ্ড” চলচ্চিত্রের মাধ্যমে অভিষেক হয়েছিল তামান্নার। রুবেলের বিপরীতে প্রথম সিনেমাতেই বাজিমাত। এরপর হৃদয়ে লেখা নাম,কঠিন শাস্তি, চাই শুধু ভালোবাসা, তুমি আমার ভালোবাসা, , আমার প্রতিজ্ঞা, , সন্ত্রাসী বন্ধুসহ আরো সিনেমাতে দেখা গেছে। ২০১৩ সালে অভিনীত মঈন বিশ্বাস পরিচালিত পাগল তোর জন্য রে এর পর তাকে আর অভিনয়ে করতে দেখা যায়নি।

এখন সুইডেনে তিনি আছেন বলে জানা গেছে। বেশ কয়েকবছর ধরেই সেখানে আছেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায় যে সুইডেন থেকে দেশে ফেরার সম্ভাবনা নেই তার।

২।রত্না:

এই নায়িকাও একটা সময়ে সিনেমায় সম্ভাবনা তৈরি করেছিলেন । কিন্তু খুব বেশি দিনের জন্য তা টিকিয়ে রাখতে পারেননি। তবে তিনি ছোটপর্দায় কাজ করছিলেন। কিন্তু এ মাধ্যমেও ততটা সফলতা অর্জন করতে পারেননি।

বর্তমানে অভিনয় জগত থেকে সম্পূর্ণ দূরে রয়েছেন। ব্যাবসায় মনোযোগী হয়েছেন। “তামান্না ফিল্মস” নামে একটি প্রযোজনা সংস্থা্ও গড়ে তুলেছেন তিনি। সেখান থেকে তিনি “সেদিন বৃষ্টি ছিল” নামে একটি সিনেমা মুক্তি দিয়েছিলেন। সেখানে নায়িকা হিসাবে অভিনয় করেছেন সে।

৩। শাকিবা:

শাকিবা বিনতে আলী তার পুরো নাম। প্রায় ৪০টির বেশি ছবি মুক্তি পেয়েছে যেখানে তিনি অভিনয় করেছেন। প্রায় ৭ বছর ধরে চলচ্চিত্র থেকে দূরে রয়েছেন একসময়ের চিত্রনায়িকা।

‘জীবনের গ্যারান্টি নাই’ ছবির মাধ্যমে শাকিবার অভিষেক হয়েছিল। সেখানে আমিন খানের বিপরীতে প্রথম ছবিই সুপারহিট হয়। এরপর অনেকগুলো ছবিতে কাজ করেছেন। যেমন- ‘ভন্ড নেতা’,মাঝির ছেলে ব্যারিস্টার’,,‘বাঁচাও দেশ’,‘ রূপান্তর, দুর্ধষ’, ‘বস্তির ছেলে কোটিপতি’, ‘এক জবান’, ‘মাটির ঠিকানা’ ইত্যাদি।

৪। লিমা:

“প্রেম যুদ্ধ” ছবিতে সালমানের সঙ্গে জুটি বাঁধেন লিমা। পরের বছর দেলোয়ার জাহান “ঝন্টুর কন্যাদান” ছবিতেও দেখা যায় এই জুটিকে। কিন্তু চিত্রনায়িকা লিমা পরে একেবারেই হারিয়ে যায় চিত্রজগত থেকে।

৫। সাহারা:

‘রুখে দাঁড়াও’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে চিত্রজগতে অভিষেক হয় সাহারার। একসময় অশ্লীলতার তকমা গায়ে জড়িয়েছিলেন। মাঝে ভালো কিছু ছবিতে অভিনয় করে নিজেকে কিছুটা ধুয়েমুছে পরিষ্কার করেছিলেন। ২০০৬ সালে শাকিব খানের বিপরীতে ‘প্রিয়া আমার প্রিয়া’ চলচ্চিত্র বেশ ভালো ব্যবসা করেছিলেন। ২০১৩ সালে এক চিত্রপ্রযোজককে গোপনে বিয়ে করে চলচ্চিত্র থেকে স্বেচ্ছানির্বাসনে যান তিনি। বর্তমানে পুরোদস্তুর সংসারী।

৬। কেয়া:

বাংলা চলচ্চিত্রের আরেকজন “গ্ল্যামারগার্ল” কেয়া। সিনেমায় এসে বেশ আলোচনা তৈরি করেছিলেন। কিন্তু বখাটেপনার কারণে আজ তিনি হারিয়ে গিয়েছেন। গত ঈদে টিভি নাটকে অভিনয় করেছেন। তবে সেটাও আলোচিত কিছু নয়। কেয়াও পুরোপুরি হারিয়ে যাওয়ার অপেক্ষায় আছেনবলে মনে করা হচ্ছে।

৭। শিল্পী:

দর্শকনন্দিত নায়িকা ১৯৯৫ থেকে ২০০০ সাল এই পাঁচ বছরে ৩০ টিরও বেশি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। তার পুরো নাম আঞ্জুমান আরা শিল্পী। মোহাম্মদ হোসেন প্রযোজিত রানা নাসের পরিচালিত ‘প্রিয়জন’ চলচ্চিত্রের কথা মনে করিয়ে দিলেই খুব সহজেই দর্শক শিল্পীকে মনে করতে পারেন। কারণ তিনি প্রয়াত অমর নায়ক সালমান শাহর বিপরীতে অভিনয় করেছিলেন।

তার সর্বশেষ চলচ্চিত্র দুটি হচ্ছে নায়করাজ রাজ্জাকের “প্রেমের নাম বেদনা”এবং দেওয়ান নজরুলের “সুজন বন্ধু”। বহু নাটকেও অভিনয় করেন এ অভিনেত্রী। বর্তমানে অভিনয় ছেড়ে সংসার এবং দুই সন্তান ছেলে সানাদ ও মেয়ে অ্যাঞ্জেলিনাকে নিয়েই ব্যস্ত তিনি।

৮। মুক্তি:

‘চাঁদের আলো’ ‘শ্রাবণ মেঘের দিন’, ‘হাছন রাজা’ সহ বেশ কিছু সিনেমায় অভিনয় করেছেন এবং প্রশংসা কুড়িয়েছিলেন এই অভিনেত্রি।অভিনেত্রী আনোয়ারার মেয়ে মুক্তি। কিন্তু একটা সময়ে কোথায় যেন হারিয়ে গেছেন। এরপর পাশ্বচরিত্রে কিছু সিনেমায় অভিনয় করলেও নিজের খ্যাতিটা আর তুঙ্গে তুলতে পারেননি এই অভিনেত্রী। তার মায়ের অভিনীত কিছু বিখ্যাত সিনেমা যেমন ‘শুভদা’,‘দেবদাস’, ‘নবাব সিরাজউদ্দৌলা’ সিনেমাগুলো রিমেক করবেন বলে শেনা যাচ্ছে।

Advertisements

Add comment

Your Header Sidebar area is currently empty. Hurry up and add some widgets.