Home / স্বাস্থ্য প্রতিদিন / রক্তে কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ রাখতে যে খাবর গুলো খাবেন।

রক্তে কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ রাখতে যে খাবর গুলো খাবেন।

বর্তমানে ব্যাপক আকারে দেখা দিচ্ছে উচ্চমাত্রায় কোলেস্টেরল এর সমস্যা। স্বাভাবিক ভাবে প্রত্যেক মানুষের শরীরে কোষে কোলেস্টেরল থাকে। আর এই সকল কোলেস্টেরল আমরা খাদ্য গ্রহণের মাধ্যমেও গ্রহণ করে থাকি। মানব দেহের শরীরে কোলেস্টেরল হরমোন তৈরিতে এবং ভিটামিন-ডি জেনারেশনের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। আর আমাদের শরীরের তখনই সমস্যা দেখা দেয় যখন এই কোলেস্টেলের মাত্রাটা অস্বাভাবিক ভাবে বেশি বেড়ে যায়।

প্রত্যেকটা মানুষের শরীরে দুইটি ভিন্ন ভিন্ন ধরণের কোলেস্টেরল থাকে থাকে। LDL (Low-density lipoprotein) যাকে আমরা খারাপ কোলেস্টেরল বলে থাকি। HDL (High- density lipoprotein) বা ভালো কোলেস্টেরল বলে থাকি। বিভিন্ন কারনে একজন মানুষের শরীরের রক্তে প্রচুর পরিমান কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়তে পারে। তাদের একটি উদাহরণ দেওয়া হলো:

অতিরিক্ত ওজন বেড়ে যাওয়া, অস্বাস্থ্যকর খাবর খাওয়া, ফাষ্ট ফুড খাওয়া, ব্যায়ম না করা, নিয়ন্ত্রণহীন জীবন যাপন করা ইত্যাদি। যার ফলে আমাদের স্বাভাবিক ভাবেই রক্তে কোলেস্টেরল এর মাত্রা বেড়ে যায়। আমাদের এই সকল অভ্যাসগুলো ত্যাগ করতে হবে আগে।

আসুন জেনেনেই যে খাবরগুলো খেলে শরীরের রক্তে কোলেস্টেল কমায়।

১. ওটস: ওটস একটি দ্রবীভূত (soluble fiber)  আঁশ যুক্ত খাবার যার ফলে রক্তে কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। অতএব আমাদের সকালের নাস্তার ওটস এর তালিকাটা রাখতে হবে। চাইলে এর সাথে কলা এবং স্ট্রবেরীও অ্যাড করতে পারেন। ওটস ওজন কমাতেও সাহায্য করে।

২. বীজ জাতীয় খাবর অথাবা সিমের বীজ: সীম জাতীয় খাবারে দ্রবীভূত আঁশের ভালো উৎস থাকে যা কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। যে কোন ধরনের সিমের বীজ, কিডনী বিন, মটরশুঁটি খেতে পারেন।

৩. বেগুন ও ঢেঁড়স: এই দুইটি সবজি ক্যালেরির পরিমাণ কম এবং এই দুটোতেই দ্রবীভূত আঁশের পরিমান বেশি থাকে যার ফলে কোলেস্টেরল কমায়।

৪. বাদাম: বিভিন্ন ওয়েবসাইট ঘুটে দেখা গেছে যে, প্রতিদিন যদি ২ আউন্স করে বাদাম খায় তাহলে তার শরীরে খারাপ কোলেস্টেলের মাত্রা ৫% কমে যাবে। অতএব প্রতিদিন যদি বিকালের নান্তায় কাজুবাদম, কাটবাদাম, বিনাবাদাম খায় তাহলে অবশ্যই খারাপ কোলেস্টেলের মাত্রা কোমে যাবে।

৫. আপেল, আঙ্গুর, স্ট্রবেরী ও অন্যান্য টক জাতীয় ফল: এই সকল ফলগুলোতে থাকে প্রচুর পরিমাণে থাকে পেক্টিন নামক দ্রবীভূত আঁশ , যা LDL এর পরিমাণ কমাতে সাহায্য করে।

৬. সয়া: টফু, সয়ামিল্ক কোলেস্টেরল কমাতে অনেক সাহায্য করে। বিভিন্ন ষ্টাডিতে দেখা যায় যে, কেউ যদি অন্তত প্রতিদিন ২৫ গ্রাম করে সয়া প্রোটিন খায় তাহলে তার LDL লেভেল ৫% – ৬% কমে যাবে।

৭. মাছের তেল/ফ্যাটি মাছ: মাছের তেলে থাকে ওমেগা ৩ ফ্যাটি নাম এসিড, যা শরীরের ক্ষতিক Triglyceride কমাতে সাহায্য করে। সুতরাং মাংসের পরিবর্তে মাছ খাওয়া হতে পারে কোলেস্টেরল কমানোর জন্য আদর্শ।

৮. উদ্ভিজ তেল: ঘি, মাখন এর বাদে সূর্যমুখীর তেল, ক্যানোলা অয়েল রান্নায় ব্যবহার করা LDL লেভেল কমানোর জন্য।

একইসাথে নিয়মিত শরীরচর্চা করার অভ্যাস গড়ে তুললেও কোলেস্টেরল এর মাত্রা নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে ও ধারাটি বজায় থাকবে।

About Rony

mm
যা জানি তা জানাতে চাই ☺

Check Also

কিছু কিছু অভ্যাস মানসিক চাপমুক্ত রাখবে আপনাকে

প্রতিটা মানুষই এখন খুব ব্যস্ততার মাঝে জীবন পার করে। এখন মানুষ মানে আমরা সবাই যান্ত্রিক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *