ব্লগ একাত্তর-

সেরা পাঁচটি ফোন স্যামসাংয়ের দেখেনিন।

আমরা আপনাকে বলে দিচ্ছে স্যামসাংয়ের সেরা পাঁচ ফোনে কনফিগারেশন। এর মধ্য থেকে আপনি আপনার পছন্দের ফোনটি বেছে নিতে পারেন।

গ্যালাক্সি এস এইট প্লাস ১২৮ জিবি ভার্সন।

এটি হাইএন্ড সিরিজের ফোনটিতে ৬.২ ইঞ্চির কিউএইচডি প্লাস সুপার অ্যামোলিড ডিসপ্লে রয়েছে। দুইটি প্রসেসর ভার্সনে ফোনটি পাওয়া যাচ্ছে। এগুলো হলো অক্টাকোর এক্সিনোস ৯ এবং স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫ প্রসেসর।

অ্যানড্রয়েড ৭.০ নুগাট অপারেটিং সিস্টেম চালিত ফোনটি ৪ ও ৬ জিবি র‌্যাম ভার্সনে পাওয়া যাবে। এর মেমোরি যথাক্রমে ৬৪ এবং ১২৮ জিবি।

ছবির জন্য ফোনটিতে ১২ মেগাপিক্সেলের ডুয়েল রিয়ার ক্যামেরা রয়েছে। সেলফি ক্যামেরা ৮ মেগাপিক্সেলের।

নিরাপত্তার জন্য এতে আইরিস স্ক্যানার এবং ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার রয়েছে। আইপি৬৮ সনদপ্রাপ্ত ফোনটিতে ৩৫০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার আওয়ারের ব্যাটারি সংযোজন করা হয়েছে।

এই ফোনে আছে কিউএইচডি প্লাস সুপার অ্যামোলিড ডিসপ্লে। এতে অক্টাকোর এক্সিনোস ৯/স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫ প্রসেসর রয়েছে।

৪ ও ৬ জিবি র‌্যাম ভার্সনে ফোনটি পাওয়া যাবে। এর বিল্টইন মেমোরি যথাক্রমে ৬৪ এবং ১২৮ জিবি।

১২ মেগাপিক্সেলের ডুয়েল রিয়ার ক্যামেরা আছে। সেলফি ক্যামেরা ৮ মেগাপিক্সেলের।

আইরিস স্ক্যানার এবং ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর সম্বলিত ফোনটিতে আইপি ৬৮ সনদপ্রাপ্ত এই ফোনটি ওয়াটার এবং ডাস্ট রেসিসট্যান্ট।

ব্যাকআপের জন্য এতে ৩০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের ব্যাটারি রয়েছে।

গ্যালাক্সি এস এইট প্লাস ১২৮ জিবি ভার্সন
এটি হাইএন্ড সিরিজের ফোনটিতে ৬.২ ইঞ্চির কিউএইচডি প্লাস সুপার অ্যামোলিড ডিসপ্লে রয়েছে। দুইটি প্রসেসর ভার্সনে ফোনটি পাওয়া যাচ্ছে। এগুলো হলো অক্টাকোর এক্সিনোস ৯ এবং স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫ প্রসেসর।

অ্যানড্রয়েড ৭.০ নুগাট অপারেটিং সিস্টেম চালিত ফোনটি ৪ ও ৬ জিবি র‌্যাম ভার্সনে পাওয়া যাবে। এর মেমোরি যথাক্রমে ৬৪ এবং ১২৮ জিবি।

ছবির জন্য ফোনটিতে ১২ মেগাপিক্সেলের ডুয়েল রিয়ার ক্যামেরা রয়েছে। সেলফি ক্যামেরা ৮ মেগাপিক্সেলের।

নিরাপত্তার জন্য এতে আইরিস স্ক্যানার এবং ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার রয়েছে। আইপি৬৮ সনদপ্রাপ্ত ফোনটিতে ৩৫০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার আওয়ারের ব্যাটারি সংযোজন করা হয়েছে।

গ্যালাক্সি জে সেভেন ম্যাক্স

এই ফোনে আছে ৫.৭ ইঞ্চির ফুর এইচডি টিএফটি আইপিএস ২.৫ ডি কার্ভড গ্লাস। এতে ১.৬ গিগাহার্জের মিডিয়াটেক হেলিও পি২০ প্রসেসর রয়েছে। আরো আছে মালি টি৮৮০ গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিট।

৪ জিবি এলপিডিডিআর থ্রি র‌্যাম সমৃদ্ধ ফোনটিতে ৩২ জিবি বিল্টইন মেমোরি আছে। যা মাইক্রোএসডি কার্ডের মাধ্যমে ১২৮ জিবি পর্যন্ত বাড়িয়ে নেয়া যাবে।

অ্যানড্রয়েড ৭.০ নুগাট অপারেটিং সিস্টেম চালিত এই ফোনে ডুয়েল সিম স্লট রয়েছে। ছবি তোলার জন্য আছে ১৩ মেগাপিক্সেলের রিয়ার এবং ১৩ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা। ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর সম্বলিত ফোনটিতে ৩৩০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার আওয়ারের ব্যাটারি রয়েছে।

গ্যালাক্সি জে সেভেন ম্যাক্স

এই ফোনে আছে ৫.৭ ইঞ্চির ফুর এইচডি টিএফটি আইপিএস ২.৫ ডি কার্ভড গ্লাস। এতে ১.৬ গিগাহার্জের মিডিয়াটেক হেলিও পি২০ প্রসেসর রয়েছে। আরো আছে মালি টি৮৮০ গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিট।

৪ জিবি এলপিডিডিআর থ্রি র‌্যাম সমৃদ্ধ ফোনটিতে ৩২ জিবি বিল্টইন মেমোরি আছে। যা মাইক্রোএসডি কার্ডের মাধ্যমে ১২৮ জিবি পর্যন্ত বাড়িয়ে নেয়া যাবে।

অ্যানড্রয়েড ৭.০ নুগাট অপারেটিং সিস্টেম চালিত এই ফোনে ডুয়েল সিম স্লট রয়েছে। ছবি তোলার জন্য আছে ১৩ মেগাপিক্সেলের রিয়ার এবং ১৩ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা। ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর সম্বলিত ফোনটিতে ৩৩০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার আওয়ারের ব্যাটারি রয়েছে।

স্যামসাং গ্যালাক্সি অন ম্যাক্স

স্যামসাংয়ের মিড রেঞ্জের এই ফোনে ৫.৭ ইঞ্চির ফুল এইচডি টিএফটি আইপিএস গ্লাস সমৃদ্ধ ডিসপ্লে রয়েছে। আরো আছে ২.৫ ডি কার্ভড ডিসপ্লে। এতে মিডিয়াটেক হেলিও পি২৫ লাইট প্রসেসস সংযোজন করা হয়েছে।

৪ জিবি র‌্যামের এই ফোনে ৩২ জিবি রম রয়েছে। যা মাইক্রোএসডি কার্ডের মাধ্যমে ১২৮ জিবি পর্যন্ত বাড়িয়ে নেয়া যাবে।

অ্যানড্রয়েড নুগাট অপারেটিং সিস্টেম চালিত এই ফোনে ৩৩০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার আওয়ারের ব্যাটারি সংযোজন করা হয়েছে।

এতে ছবি তোলার জন্য আছে ১৩ মেগাপিক্সেলের রিয়ার এবং ফ্রন্ট ক্যামেরা। ফোরজি কানেকটিভিটি এবং ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর সম্বলিত এই ফোনে ৩৩০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার আওয়ারের ব্যাটারি রয়েছে।

স্যামসাং গ্যালাক্সি জে সেভেন নেক্সট

এই ফোনে ৫.৫ ইঞ্চির সুপার এইচডি অ্যামোলিড ডিসপ্লে ব্যবহার করা হয়েছে। সঙ্গে আছে ২.৫ ডি কার্ভড গ্লাস। এতে ১.৬ গিগাহার্জের অক্টাকোর এক্সিনোস ৭৮৭০ প্রসেসর এবং মালি টি৮৩০ গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিট রয়েছে।

২ জিবি র‌্যামের এই ফোনে ১৬ জিবি রম রয়েছে। সম্প্রতি এই ফোনটি ৩ জিবি র‌্যাম এবং ৩২ জিবি রম ভার্সনে বাজারে এসেছে।

উভয় ভার্সনের মেমোরি মাইক্রোএসডি কার্ডের মাধ্যমে ২৫৬ জিবি পর্যন্ত বাড়িয়ে নেয়া যাবে। অ্যানড্রয়েড নুগাট অপারেটিং সিস্টেম চালিত এই ফোনে ডুয়েল সিম সাপোর্ট করে।

ছবির জন্য এই ফোনে আছে ১৩ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরা এবং ৫ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা। ফোরজি কানেকটিভিটি সমৃদ্ধ এই ফোনে ৩০০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার আওয়ারের ব্যাটারি রয়েছে।

গ্যালাক্সি জে সেভেন প্রো

এই ফোনে আছে ৫.৫ ইঞ্চির ফুল এইচডি ডিসপ্লে। এতে সুপার অ্যামোলিড ডিসপ্লে সংযোজন করা হয়েছে। ডিসপ্লের উপরিভাগে রয়েছে ২.৫ ডি কার্ভড গ্লাস। দ্রুত গতির কার্য সম্পাদনের জন্য আছে ১.৬ গিগাহার্জের অক্টা-কোর এক্সিনোস ৭৮৭০ প্রসেসর। সঙ্গে আছে মালি টি৮৩০ গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিট।

৩ জিবি র‌্যামের এই ফোনটিতে ৬৪ জিবি রম রয়েছে। মাইক্রোএসডি কার্ডের মাধ্যমে মেমোরি ২৫৬ জিবি পর্যন্ত বাড়িয়ে নেয়া যাবে। ফোনটি অ্যানড্রয়েড নুগাট অপারেটিং সিস্টেম চালিত।

ছবির তোলার জন্য স্যামসাংয়ের এই ফোনে আছে ১৩ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ও রিয়ার ক্যামেরা। এর ব্যাটারি ৩৬০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার আওয়ারের।

Advertisements

Add comment

Your Header Sidebar area is currently empty. Hurry up and add some widgets.