ব্লগ একাত্তর-

স্বাস্থ্য ভালো রাখার উপায়

শরীর ভালো থাকলে যেমন কাজের স্পৃহা বাড়ে, তেমন মনও থাকে ফুরফুরে ও সতেজ।আর মন ভালো থাকলে সবকিছুই ভালো লাগে।তাছাড়া সুস্থ,সুন্দর ও ফিট শরীর সবারই কাম্য।চলুন জেনে সুস্থ থাকার কিছু নিয়ামাবলী-

১।নিয়মিত ও পরিমিত খাদ্যভ্যাস গড়ে তুলুণ।খাবার তালিকায় আঁশযুক্ত খাবার বাড়ান।আমিষ ও চর্বিজাতীয় খাবার কমিয়ে আনুন।ভাজা-পোড়া ও ফাস্টফুড জাতীয় খাবার সম্পূর্ণ বন্ধ করুণ।

২।খাবারের শুরুতে এক থেকে দুই গ্লাস পানি পান করুণ।খাবার শেষে অন্তত এক থেকে দুই ঘন্টা পর পানি পান করবেন।

৩।লালমাংস (চার পা বিশিষ্ট পশুর মাংস),দোকানের কেনা মিষ্টি,ঘি,ডালডা,ডাল

৪।,ফলমূল ও শাকসবজি বেশি করে খাদ্য তালিকায় রাখুন।একবারে বেশি করে খাওয়ার চেয়ে অল্প অল্প করে বার বার থেতে পারেন।

৫।রাতে তাড়াতাড়ি খাওয়া উচিত।খাওয়ার এক থেকে দুই ঘন্টা পর শোওয়ার অভ্যাস গড়ে ‍তুলুন।

৬।সুস্বাস্থ্য ও ফিগারের জন্য নিয়মিত ও পরিমিত ঘুম প্রয়োজন।দিনে শোওয়ার অভ্যাস ত্যাগ করে রাতে তাড়াতাড়ি ঘুমের অভ্যাস গড়ে তুলুন।

৭।যাদের মেদ বা ভুড়ি জমেছে তারা নিয়মিত ও সঠিক ব্যায়াম করতে পারেন।এর জন্য একজন ফিজিওথেরাপি বিশেষজ্ঞের পরামর্শ গ্রহণ করা যেতে পারে।মনে  রাখাবেন ভুল ব্যায়াম ও অনিয়মিত জিম এক্সারসাইজ আপনার সমস্যা আরও বাড়িয়ে তুলতে পারে।

৮। প্রতিদিন সমতল জায়গায় হাঁটার চেষ্টা করুণ।মনে রাখবেন হাঁটা সর্বোৎকৃষ্ট ব্যায়াম।নিয়মিত অন্তত এক থেকে দুই ঘন্টা হাঁটার অভ্যাস করুণ।

৯।ভোরে ঘুম থেকে উঠার অভ্যাস গড়ে তুলুন।সকালে স্কুল কলেজ বা অফিসে যাওয়ার আগে গোসল সেরে নিন।এবং ডালজাতীয় খাবার কম খান।

১০।বেশি উচু তলায় উঠার দরকার না হলে,লিফটের পরিবর্তে সিড়ি ব্যবহার করুণ।

১১।প্রতিদিন ৭ থেকে ৮ ঘন্টা নিয়মিত ঘুমের অভ্যাস করুণ।

 

সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে আজকের মত পোষ্টটি এখানে শেষ করছি।

Advertisements

Add comment

Your Header Sidebar area is currently empty. Hurry up and add some widgets.