ব্লগ একাত্তর-

CPA মার্কেটিং এর খুটিনাটি সকল বিষয়।

CPA মার্কেটিং নিয়ে আজকে আমার প্রথম পোষ্ট। যারা নতুন তারা ভাবছেন CPA মার্কেটিং কি? আর যারা নতুন শুনেছেন তাদেরও এই পোষ্টটি উপকারে আসে। আসুন কিভাবে দেখে নেই CPA মার্কেটিং কিভাবে করতে। যারা নতুন এই লাইনে আসাকরি পোষ্টটি মনযোগ দিয়ে পড়বেন। তাহলে চলুন শুরু করা যাক।

সিপিএ মার্কেটিং কি? 

CPA মার্কেটিং হচ্ছে,  এফিলিয়েট মার্কেটিং-এর একটি গুরুত্বপূর্ণ পার্ট । CPA এর বাংলা অর্থ আসে “Cost Per Action” । এটা নতুন একটি এডভার্টাইজমেন্ট পেমেন্ট মডেল, যেগুলার পেমেন্ট কিছু কাজের উপর নির্ভর করে

সেটা হতে পারে “রেজিষ্টেশন, ইমেল সাবমিট, পিন সাবমিট অথবা ডাইনলোড। বুঝাতে পেরেছি? আবার বুঝেন এবার ভাল করে বুঝবেন,  সি পি এ (CPA) মার্কেটিং হল এমন এক ধরনের অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং যার মাধ্যমে আপনি কোন পণ্য বিক্রি এর পাশাপাশি ছোট কিছু কাজ যেমন ইমেইল সাবমিট , জিপ কোড সাবমিট, ডাউনলোড ইত্যাদি কাজের মাধ্যমে ইনকাম করতে পারেন। এজন্যই একে বলা হয়ে থাকে কস্ট পার অ্যাকশন তার মানে যে কোন অ্যাকশন ফুলফিল হলেই আপনি কমিশন পাবেন। আপনারা সবাই হয়তো জানেন Amazon অথবা Clickbank. com এর প্রোডাক্ট প্রমোট করে রেভিনিউ শেয়ারের মাধ্যমে টাকা ইনকাম করা যায় । কিন্তু সি. পি. এ. মার্কেটিং তার থেকে অনেক সহজ এবং কাজও অনেক কম। আশা করি সন্দেহ নেই আর।

সিপিএ মার্কেটিং এর অধিনে কি কি হতে পারে?

০১।  অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং / পে পার সেল (PPS / CPS)

০২। পে পার লিড (PPL)

০৩। পে পার ডাউনলোড (PPD)

০৪। রেভিনিউ শেয়ার (Rev. Share)

০৫। আরো অনেক কিছুই হতে পারে।

এই সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে আপনাকে প্রথমে জানতে হবে “কেন সব অ্যাফিলিয়েট মার্কেটার সিপিএ মার্কেটিং কে এত পছন্দ করে”?

কেন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটাররা সি.পি.এ নেটওয়ার্ক পছন্দ করে?

আমার দেখা মতে বড় বড় ইন্যারন্যাশনাল লেভেলের অ্যাফিলিয়েট মার্কেটাররা সি পি এ মার্কেটিং টা খুব পছন্দ করে এবং সেখানে কাজ করে খুব ভালো একটা ইনকাম করে থাকেন। আপনারা যারা অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করেন তারা জানেন প্রিতিটি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটপ্লেসে সেলস রিফান্ড এর একটা অপশন প্রোডাক্ট এর মালিক দিয়ে রাখে। এর মানে হচ্ছে আপনি যদি কোন প্রোডাক্ট বিক্রি করেন আপনার কাস্টমার ৩০ থেকে ৬০ দিন সময় পায় ওই প্রোডাক্ট ব্যবহার এবং মান যাচাই করার জন্য। যদি তাদের প্রোডাক্ট ভালো না লাগে তাহলে তারা টাকা ফেরত নিয়ে নিতে পারে।

এখন আপনার কাস্টমার যদি টাকা ফেরত নিয়ে নেয় তাহলে আপনি কি ওই সেল এর কমিশন টি পাবেন? না, পাবেন না। কারন ওই সেল থেকে প্রোডাক্ট এর মালিকের কোন লাভ হয় নি। এজন্য সে আপনাকেও কোন কমিশন দিতে পারে না। এবং যদি প্রোডাক্ট এ ৬০ দিন মানি ব্যাক গ্যারান্টি থাকে তাহলে ৫৯ দিনের মাথায়ও যদি কাস্টমার টাকা ফেরত নিয়ে নেয় তাতেও আপনি কমিশন পাচ্ছেন না। সি.পি.এ মার্কেটপ্লেসে এই টাকা রিফান্ড এর অপশন খুব কম অফারেই থাকে এজন্য আপনি কোন প্রোডাক্ট বিক্রি করলে ওই কমিশন হারানোর ভয় খুব কম।

সি.পি.এ মার্কেটিং এ অফার কেমন হয়?

সি.পি.এ মার্কেটিং এ অফার এর ক্ষেত্রে আমরা মনে করি শুধু মাত্র ইমেইল সাবমিট করা বা কোন ফাইল ডাউনলোড করা এটাই সি.পি.এ মার্কেটিং। যারা বড় মাপের মার্কেটার তারা এই ১/২ ডলারের অফার প্রোমট করে না। তারা আসলে সেলস বা ট্রায়াল অফার নিয়ে কাজ করে থাকে। কারন ১/২ ডলারের অফার নিয়ে পেইড ক্যামেপিন করাটা আসলেই অনেক রিস্ক এর কাজ।

সি.পি.এ মার্কেটিং এ সিম্পল যে অফার গুলো থাকে সেগুলো হচ্ছে এমন ধরুন, কোন ওয়েবসাইটের লিঙ্ক দেবে আপনাকে এবং আপনাকে বলে দেবে USA থেকে ভিজিটর যোগার করুন আমাদের এই লিঙ্ক এ এবং রেজিস্ট্রেশন করান। যদি আপনার মাধ্যমে কেউ রেজিস্ট্রেশন করে তাহলে আপনাকে একটা কমিশন দেওয়া হবে ওই রেজিস্টয়্রেশনের জন্য। এটা হতে পারে ১ ডলার থেকে ১০/২০ ডলার পর্যন্ত। ব্যাপার গুলা বুঝতে পারলেন?

আমি কি সিপিএ মার্কেটিং শিখতে পারবো?

হ্যাঁ, পারবেন । তবে নিম্নের বিষয় গুলা লাগবে ।

১। ইন্টারনেট সম্পর্কে যার নুন্যতম জ্ঞান রয়েছে

২। যিনি অনলাইন থেকে আয় করতে ইচ্ছুক

৩। যিনি কম্পিউটার এ ৩ থেকে ৪ ঘন্টা সময় দিতে পারবেন

অ্যাফিলিয়েট অথবা সিপিএ (CPA) মার্কেটিং শেখার জন্য ১ বছর অথবা ৬ মাস এর কোন ডিগ্রী ভিত্তিক কোর্স এর দরকার নেই। ভালো কোন আইটি ফার্ম থেকে ২ বা ৩ মাসের কোর্স এ যথেস্ট!

(CPA) মার্কেটিং করার  যা যা প্রয়োজন হবে!

ওয়েব সাইট

(CPA) মার্কেটিং করার জন্য আপনার একটি ওয়েব সাইট থাকতে হবে!

এই কথাটি শুনেই হইত অনেকেই হতাশ হবেন! কিন্তু হতাশ হবার কিছু নেই। শুধু মাত্র একটি ব্লগ সাইট খুলেও আপনি (CPA) মার্কেটিং করতে পারবেন। অথবা কোন ওয়েব সাইট এর সাব ডোমেইন (যা কিনা একদম ফ্রী তে খোলা যায়) দিয়ে আপনি (CPA) মার্কেটিং করতে পারেন!

সিপিএ মার্কেটিং কেন শিখবেন?

কারণ, এক মাত্র সিপিএ মার্কেটিং থেকে আপনি ইনকাম করতে পারবেন কোন রকম ঝামেলা ছাড়াই।

সিপিএ মার্কেটিং করা মানে কারো অধীনে চাকুরী করা না। এটা পুরটাই আপনার নিজের বিজনেস, যেখানে আপনি অন্য দের চাকুরী তে নিয়োগ দিতে পারবেন!

মূল কথা হইলো গিয়া আপনি সিপিএ মার্কেটিং শিখে একটি সিপিএ ফার্ম ও দিতে পারবেন।

বিভিন্ন মার্কেট প্লেস এ কাজ খোঁজার থেকে নিজের বিজনেস করা অনেক শ্রেয়। ভুল বললাম নাকি?

সিপিএ (CPA) থেকে মাসে কত টাকা ইনকাম করা যাবে?

এটা নির্ভর করবে আপনি কত ইনকাম করতে চান তার টার্গেট এর উপর।  আপনার ইনকাম টার্গেট যতবেশী হবে আপনার বিনিয়োগ বাড়াতে হবে। তবে আপনি বিনিয়োগ ছাড়াও ইনকাম করতে পারবেন। আপনার ইচ্ছা এবং পরিশ্রম থাকলে আপনি দিনে গড়ে ২০ থেকে ২০০ ডলার ইনকাম করতে পারবেন। এখন মাসিক টা আপনি নিজেই হিসাব করে নিন । আমার ক্যালকুলেটর ভাংগা ।

সিপিএ (CPA) মার্কেট থেকে পেমেন্ট কিভাবে পাওয়া যায়?

সিপিএ (CPA) মার্কেটপ্লেস সাধারনত ৩ ধরনের পেমেন্ট সিস্টেম থাকে। আপনি চেক Check এর মাধমে নিতে পারবেন, পেপাল PayPal এর মাধমে নিতে পারবেন,  পাইনিয়ার কার্ড Pre-paid Master Card by Payoneer এর মাধমে নিতে পারবেন, ব্যাংক ট্রান্সফার এর মাধমে নিতে পারবেন, Electronic Funds Transfer এর মাধমে নিতে পারবেন কোনো সমস্যা নাই ।

আসল পয়েন্টে চলে আসি এখন আপনাকে খুজে বের করতে হবে “লাভজনক নিস কনটেন্ট”

শুরুতে বেশিরভাগ মানুষ এভারগ্রিন অর্থাৎ চিরসবুজ কনটেন্ট নির্বাচন করেন। কেননা  এ জাতীয় কন্টেন্টের বাজার কখনোই হারাবে না এবং সব সময় সমান লাভবান হওয়া যাবে। চিরসবুজ কনটেন্ট বলতে সাধারণত স্বাস্থ্য পরামর্শ, বিনিয়োগ কৌশল, বিপণন কৌশল, সম্পর্ক পরামর্শ এবং রূপচর্চার মত কনটেন্টগুলোকে বোঝানো হয়। যদিও এ জাতীয়  কনটেন্ট নিয়ে যারা কাজ করেন, তাদের প্রত্যেকের কাজে বৈচিত্র্য আছে। তবে এভারগ্রিন কনটেন্ট ছাড়াও লাভবান হওয়ার মতো অনেক কনটেন্ট আছে। আমাদের সেগুলোও খুঁজে বের করতে হবে।

পোষ্টটি আপনাদের কেমন লাগল তা অবশ্যই জানাবেন। আর পোষ্টটি যদি আপনাদের ভালে লেগে থাকে তাহলে নিয়োমিত ভিজিট করুন আমাদের টেক বাংলা ব্লগ সাইটে। ভালো থাকুন, সুস্থ্য থাকুন এই কামনায় আমি আমার পোষ্টটি শেষ করছি।

লেখক এবং রিসার্চারঃ শিশির চৌধুরী।

Advertisements
mm

Rony

যা জানি তা জানাতে চাই ☺

Add comment

Your Header Sidebar area is currently empty. Hurry up and add some widgets.